মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

ভাষা ও সংষ্কৃতি নন্দিগ্রাম উপজেলা।

 

 

 

ভাষা ও সংষ্কৃতি

 

           নন্দীগ্রাম উপজেলার ভূ-প্রকৃতি ও ভৌগলিক অবস্থান এই উপজেলার মানুষের ভাষা ওসংস্কৃতি গঠনে ভূমিকা রেখেছে। বাংলাদেশের উত্তর অঞ্চলে অবস্থিত এই উপজেলাকে ঘিরে রয়েছে নাটরের উত্তরা গণভবণ,  রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের উপজেলাসমূহ। এখানে ভাষার মূল বৈশিষ্ট্য বাংলাদেশের অন্যান্য উপজেলারমতই, তবুও কিছুটা বৈচিত্র্য খুঁজে পাওয়া যায়। যেমন কথ্য ভাষায় মহাপ্রাণধ্বনি অনেকাংশে অনুপস্থিত, অর্থাৎ ভাষা সহজীকরণের প্রবণতা রয়েছে। নাগর ও ভদ্রাবতি  নদীর গতিপ্রকৃতি নন্দিগ্রাম মানুষের আচার-আচরণ, খাদ্যাভ্যাস, ভাষা, সংস্কৃতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

 

             নন্দিগ্রাম এর নামকরণে ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায় অযোদ্ধার রাজা দশরথের দ্বিতীয় স্ত্রী নন্দিনির পৈত্রিক নিবাস এ এলাকাতে ছিল এবং রানীর সৌজন্যেই রাজা দশরথ এ এলাকাটির নামকরণ করেন নন্দিনির গ্রাম। পরবর্তীতে এই নন্দিনির গ্রামটিই বর্তমানে নন্দিগ্রাম হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে।

 

           এ উপজেলায় ঐতিহ্য হিসাবে কালের স্বায়ী হয়ে দাড়িয়ে আছে দূর্জয়পুরের সুখ-দুখ পুকুর, গোছনের ছয়ঘটি, পাঁচঘটি পুকুর, মুরাদপুরের বান্দির পুকুরসহ অসংখ্য পুকুর যা অতীতে জল কষ্ট নিবারণের জন্য রাজা, জমিদারগণ খনন করেছিলেন। এ এলাকাটি বন্যামুক্ত এলাকা হওয়ায় ও অসংখ্য পুকুর থাকায় মাছের চাহিদা পূরণ, ভূমিস্থ পানির সত্মর নিকটে আনায়ন এবং বসবাসের জন্য আরামযোগ্য মাটি দ্বারা তৈরী দ্বিতল ঘর যা যুগ যুগ ধরে  থাকে। এছাড়াও ওমরপুর হাট-বাজার বগুড়া জেলার বিখ্যাত হাট হিসাবে বহু যুগ ধরে চলমান রয়েছে।

 

          এ উপজেলা উত্তরে কাহালু ও শাজাহানপুর উপজেলা, দক্ষিণে নাটোর জেলার সিংড়া উপজেলা, পূর্বেঃ শেরপুর উপজেলা এবং পশ্চিমে আদমদীঘি উপজেলা ও নওগাঁ জেলা আত্রাই উপজেলা। এ উপজেলার আয়তন ২৬৬ বর্গ কিলোমিটার । উপজেলা হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে ১৯৮৩ সালে। ১৯৮৪ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মাধ্যমে প্রথম চেয়ারম্যান হিসাবে ডাঃ শফিউল আলম (বুলু) নির্বাচিত হন। এ উপজেলার ৫ টি ইউনিয়নের মধ্যে নন্দিগ্রাম ইউনিয়নের আংশিক অংশ নিয়ে নন্দিগ্রাম পৌরসভা গঠিত হয়। উপজেলার জমি অধিক উর্বর এ জন্য এখানে ব্যাপকভাবে ধান উৎপাদন হয়ে থাকে।